যুবতী ভাবীর দেহের জ্বালা মিটানো

ফারুক ভাইয়ের আমেরিকা যাবার সব কাগজপত্র

প্রায় ঠিক হয়ে গেছে। কিন্তু হঠাৎ করে সব
ভেস্তে যায়। এদিকে বয়স হয়ে যাচ্ছে তার। তাই
পরিবারের সবাই
মিলে তাকে পীড়াপীড়ি করলো বিয়ে করার জন্য।
ফারুক বাইয়ের এক
কথা তিনি আগে আমেরিকা যাবেন তারপর সবকিছু।
সবাই বোঝাল আমেরিকা থেকে ফিরে এসে তোর
বিয়ের বয়স থাকবে না।
অনেক বোঝানোর পর ফারুক ভাই রাজি হল
এবং বিয়ের পিড়িতে বসল। খুব
সুন্দরী সেক্সি খাসা মাল। যাকে দেখলে যেকোন
সামর্থবান পুরুষের ধন লাফালাফি করবে।
কন্যা লাখে একটাও পাওয়া যায় না। বয়স বিশ
কি একুশ। শরীরের গঠন বেশ চমৎকার। মাই দুটু উচু
টান টান ঢিবির মত। গায়ের রঙ ফর্সা,
চেহারা গোলগাল, উচ্চতা ৫ ফুট ৬ ইঞ্চি।
বিয়ের পর তার শরীরের গঠন আরো সুন্দর
হতে লাগল। রুপ যেন ফুটতে লাগল প্রস্ফুটিত
গোলাপের মত। ফারুক ভাই বউ পেয়ে দারুন খুশি,
সুপার গ্লু’র মত সারাক্ষন বউএর সাথে লেগে থাকত।
কিন্তু সেই লেগে থাকা আর বেশি দিন স্থায়ী হল
না। প্রায় সাড়ে চার মাস পর তিনি যত
তাড়াতাড়ি সম্ভব ফিরে আসার
প্রতিশ্রুতি দিয়ে আমেরিকার পথ পাড়ি দিলেন।
ফারুক ভাইয়ের বউ আর্থাৎ আমার চাচাত ভাবী ভাই
থাকতে যেমন কলকল ছলছল করত
আস্তে আস্তে তা মিলিয়ে যেতে শুরু করল।
পুরো বাড়িতে দেবর বলতে আমি ই তার একটি।
আমি ইন্টারমিডিয়েটে পড়ি। স্বাস্থ্য খুবই ভাল
বলা যায়। কারন আমি একজন এথলেট। ফারুক ভাইয়ের
অবর্তমানে আমার
সাথে বেশি মাখামাখি করলে লোকে খারাপ
বলবে ভেবে সে আমার সংগে একটু নিরাপদ দুরত্ব
বজায় চলাফেরা করত।
কিন্তু মাঝে মাঝে আমার
দিকে এমনভাবে তাকাতো আর বাকা ভাবে হাসত
তাতে আমার শরীর শিরশির করত। একদিন আমি সান
বাধানো ঘাটে খালি গায়ে লুঙ্গি পরে গোসল
করছি তখন সে ঘাটে আসল। আমার শরীরের
দিকে তাকিয়ে সে তার দাঁত দিয়ে তার ঠোট
কামড়ে ধরল। ভাবি একদৃষ্টিতে তাকিয়ে থাকল
আমার দিকে। ভাবি এবাড়িতে বউ হায়ে আসার পর
আমার মনে একটি সুপ্ত ইচ্ছা হল আমি একদিন
ভাবিকে জরিয়ে ধরে চুমু খাব। আজ পর্যন্ত আমার
ইচ্ছা পুর্ন হয়নি। কিন্তু বোধহয় প্রকৃতি কারও
ইচ্ছাই যেন অপুর্ন রাখে না।
ফারুক ভাইয়ের ছোট বোনের বিয়ের দিন সেই
ইচ্ছেটা পুর্নতা পেল। গায়ে হলুদের অনুষ্ঠান
চলছে। বরপক্ষ একটু আগে কন্যাকে হলুদ
লাগিয়ে চলে গেছে। এখন আমাদের মধ্যে হলুদ ও রঙ
মাখামাখি। আমি রঙের হাত থেকে বাচার জন্য
একটু নিরাপদ দুরত্বে দাঁড়িয়ে আছি। হঠাৎ দেখলাম
ভাবি আমার দিকে এগিয়ে আসছে। হাতে হলুদ। আমার
কাছে এসে বলল, দেবরকে হলুদ দিয়ে দিই,
তাড়াতাড়ি বর হবে।
ভাবি আমার কপালে ও গালে হলুদ লাগাতে থাকল।
হলুদ লাগানোর পর যখন রঙ লাগাতে গেল তখন
আমি কৃত্রিম জোড়াজোরি করার ভান করে তার হলুদ
শারীর নিচে অবস্থান করা স্তন যুগলে আমার
হাতের ছোয়া লাগিয়ে দিলাম। ভাবি আমার
বুকে একটি হালকা কিল মেরে অসভ্য অসভ্য
বলে দৌড়ে পালিয়ে গেল। এরপর থেকে যতবারই
আমার সাথে ভাবির দেখা হত
ভাবি আমাকে ভেংচি কাটত আর হাত দিয়ে কিল
দেখাত। মনে মনে ভাবছি, আমি পাইলাম,
ইহাকে পাইলাম। হলুদের পর্ব শেষ হবার পর সবাই
ঠিক করল বাড়ির পাশের নদীতে সবাই মিলে গোসল
করব। ছেলে মেয়ে বাচ্চা কাচ্চা সবাই।
আমরা ত্রিশ পয়ত্রিশ জনের একটি দল রওনা হলাম
নদীতে গোসল করার উদ্দ্যশ্যে। আমি ভাবির পাশ
দিয়ে আসার সময় বললাম আমি ডুব দিয়ে তোমার
কাছে আসব, তুমি সবার থেকে একটু আলাদা থেকো।
এবারো তিনি আমাকে ভেংচি কটলেন, বোঝলাম
আমার আর্জি কবুল হয়েছে।
সাত আট হাত দুরত্ব
রেখে ছেলে মেয়েরা নদীতে নামল। নদী পাড়ের
এক কোনায় হ্যাজাক বাতি জ্বলানো আছে, তাই
চারপাশ আলোতে ভরে গেছে। আমি দেখলাম
মেয়েদের দলের মধ্যে ভাবী আসরের মাধ্যমান
হয়ে অবস্থান করছে। আমি তার দৃষ্টি আকর্ষন করার
চেষ্টা করলাম। একসময় সে আমার দিকে তাকালো।
তাকিয়ে আশেপাশে কি যেন দেখল। তারপর
একপর্যায়ে জ্বিব বের করে আবার ভেংচি কাটলো।
সাত রাজার ধন হাতে পেলে মানুষের অবস্থা যেমন
হবার কথা আমার ও সেই অবস্থা হল।
সবাইকে আলাদা করে ভাবী একটি স্থানে চলে এল
আর আমি ডুব দিলাম।
এক ডুবে পায়ের কাছে চলে এলাম। আমি ভাবীর
ফর্সা পায়ে ঠোট দিয়ে চুমু খেলাম। তারপর তার দুই
পায়ের গোড়ালি হতে হাটু পর্যন্ত চুমু খেলাম,
কামড়ালাম। হালকা পড়পড়ে পশম ভাবীর পা যুগলে।
সেই পশমের দুই একটি দাঁত দিয়ে ছিড়লাম আর
তখুনি বুঝলাম আমার দম শেষ হয়ে আসছে।
তাকে ছেড়ে যেখানে ছিলাম
সেখানে এসে মাথা তুললাম। প্রথমেই তাকালাম
ভাবীর দিকে। একটি অনুচ্চারিত শব্দ তার মুখ
দিয়ে বের হল, বা-ব্বা। অর্থাৎ ডুব
দিয়ে যে আমি এতক্ষন থাকতে পারি হয়ত তার
বিশ্বাষ হচ্ছে না। আমি একটু রেস্ট নিয়ে তার
প্রতি একটি ছোট্ট ইঙ্গিত দিয়ে আবার ডুব দিলাম।
এবার তার কলাগাছের মত ফর্সা উরু
নিয়ে খেলা শুরু করলাম। আমি তার
উরুতে হালকা কামড় দিচ্ছি আর হাতাচ্ছি। এবার
তার উরুর ফাটলে আঙ্গুল দিয়ে নাড়াচাড়া করার
ফলে সে তার পা দুটি নাচাতে শুরু করলো। একটু
পরে আমি আবার আগের জায়গায়
এসে মাথা তুলে শ্বাস নিলাম। একটু বিশ্রাম
নিয়ে আবার গেলাম ডুব দিয়ে। এবার তার
পদ্মফুলের মত ভোদা নিয়ে কজ করার পালা। আমার
দমের পরিমান কমে যাবার
কারনে তাড়াতাড়ি করার সিদ্ধান্ত নিলাম। আমার
দাঁড়িয়ে থাকা বাড়াটি আমি তার
মুখে পুড়ে দিলাম। এতে ভাবী আমার
বাড়াটি মজা কড়ে চুষতে লাগলো। জ্বিব
দিয়ে কিছুক্ষন ভাবীর সাথে সঙ্গম করলাম। দ্রুত
ফেরার সময় ভাবী আমার বাড়ার
মধ্যে আলতো করে দুটি কামড় বসিইয়ে দিল। আবার
ফিরে এসে ভাবীকে ইঙ্গিত করে বললাম ব্লাউজ
খুলে নাক পানির উপরে দিয়ে উপুর করে বসতে।
ভাবী তাই করল। আমি আবার গিয়ে ভাবীর সুন্দর
মাই দুটি ইচ্ছামত টিপতে থাকলাম। তার
নিপলদুটি মটর দানার মত শক্ত হয়ে গেছে।
কিছুক্ষন টিপার পর আমি আমার জায়গায়
ফিরে আসলাম। দেখলাম ভাবীও নিজের জায়াগায়
ফিরে যাচ্ছে।
গোসল শেষে আসার পথে আমাকে আবার
ভেংচি কেটে মেয়েদের দলে হারিয়ে গেল। বুঝলাম
ভালোই কাজ হয়েছে। আমাদের দলটি বাড়িতে আসার
পথে একসময় ভাবীকে জিজ্ঞেষ করলাম কেমন
হয়েছে। বলল, ডাকাত কোথাকার, বদমাইশ। বললাম
আজ রাতে বদমাইশি হবে? বলল জানি না। মুখ
দেখে বুঝলাম আমার চেয়ে ভাবীই বেশি উন্মুখ
হয়ে আছে। বাড়িতে ফিরে ভাবীকে স্থান ও সময়
জানিয়ে দিলাম। স্থানটি হল গাবতলার
ভিটে যেখানে কেউ সচরাচর আসে না। সময়
নির্ধারন করলাম রাত তিনটা। বলল আমি এত
রাতে যেতে পারব না। আমি বললাম তুমি শুধু
পেছনের দর্জা দিয়ে বের হয়ে এস আমি নিয়ে যাব।
বলল ঠিক আছে।
ঠিক তিনটায় তিনি দর্জা খুলে বের হলেন।
আমি তাকে নিয়ে চললাম নির্দিষ্ট স্থানে।
ভাবিকে জড়িয়ে ধরলাম। আস্তে আস্তে আমি ভাবীর
পরনের শাড়ি, ব্লাউজ, পেটিকোট সব খুলে ফেললাম।
দু হাতে জড়িয়ে ধরে চুমু খেতে শুরু করলাম। ভাবীও
তাই করল। একসময় হাত রাখলাম ভাবীর উচু বুকের
উপর। তারপর স্তন টিপতে টিপতে হাত
নামাতে থাকলাম নাভী হয়ে ভোদার দিকে। ভোদায়
আঙ্গুলি করা শুরু করলাম। ভাবী আমার কামনায়
ভেসে যাচ্ছে। এক পর্যায়ে ভাবী আমার
পরনে তোয়ালে খুলে আমার লৌহদন্ডটিকে তার
হাতে নিয়ে মনের আনন্দে চুষতে লাগল। আমিও এই
ফাকে তার দুধ টিপে যাচ্ছি ইচ্ছামত।
ভাবীকে বললাম, তুমি খুশি? ভাবী বলল, খুশি হব
যদি তুমি আমার ভোদা চুষে দাও। যেই কথা সেই
কাজ। ভাবীকে অর্শেক শোয়া অবস্থায় বসিয়ে দু
পা ফাক করে তার ভোদা চুষতে লাগলাম। কি যে এন
অনুভুতি তা ভাষায় প্রকাশ করার মত না, ভোদার
কি মিষ্টি মৃদু গন্ধ। এভাবে প্রায় পাঁচ মিনিট
করার পর ভাবী আমাকে বলল, উফঃ মরে যাচ্ছি, আর
থাকতে পারছি না, ও আমার চোদনবাজ দেবর
আমাকে এবার তুমি চোদা শুরু কর। আমি ভাবীকে উপুর
করে আমার ধন ভাবীর ভোদায়
ঢুকিয়ে ঠাপাতে থাকলাম। ভাবী মৃদু চিৎকার
করতে থাকল। এভাবে কতক্ষন চোদার পর আমি চিৎ
হয়ে শোয়ে পড়ে ভাবীকে বললাম তুমি আমার ধনের
উপর বসে ঠাপাতে থাক। কথামত ভাবী তাই করল।
আমার ধনটাকে তার ভোদার ভেতর
ঢুকিয়ে নিজে নিজেই ঠাপাতে থাকল। আমরা দুজনেই
তখন সুখের সাগরে ভাসছি। আরও কিছুক্ষন পর
আমি মাল ঢেলে দিলাম ভাবীর ভোদাতেই। ভাবীও
দেখলাম ক্লান্ত হয়ে আমার বুকে শুয়ে পড়ল।
কিছুক্ষন পরে আমরা যার যার জামাকাপড় ঠিক
করে যার যার রুমে গেলাম ঘুমাতে।
এভাবেই প্রতিরাতে চলতে লাগল আমাদের
কামলীলা। ভাবী বলে, যতদিন না তোর ভাই
আমেরিকা থেকে দেশে ফিরে আসবে ততদিন তোর
ভাইয়ের কাজ তুই করবি। বলল,
প্রয়োজনে যৌনশক্তি বর্ধক
ভায়াগ্রা খেয়ে নিবে … …

Share this:

CONVERSATION

0 comments:

Post a Comment